বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৫

আবারও বিজ্ঞাপন


এক 
বহু বছর আগে রহস্য পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়ার আহবান জানিয়ে দেয়া বিজ্ঞাপনে চমৎকার একটি কথা পড়েছিলাম, এতদিন বাদেও কথাটা পষ্ট মনে আছে, “ বিজ্ঞাপন না দিয়ে ব্যবসা করা আর অন্ধকারে কোন সুন্দরীর দিকে চেয়ে মিষ্টি করে হাসা একই কথা; তুমি জানো তুমি কী করছ, অথচ আর কেউ জানে না।’’ বলেছিলেন, Steuart Henderson Britt। এই লেখাটা লিখতে লিখতেই একবার গুগল করে নিশ্চিত হয়ে নিলাম, গুডরিডসে পাওয়া গেলো, মূল কথাটা এরকম- “Doing business without advertising is like winking at a girl in the dark. You know what you are doing but nobody else does.”। ইংরেজিটা পড়ে আরেকবার চমৎকৃত হলাম সেবা’র অনুবাদে, এত সুন্দর বাংলা অনুবাদ সেবা প্রকাশনী না হলে আসলেই পেতাম না আমরা। 
 একাডেমিক কিছু কাজে গত কিছুদিন দেশবিদেশের নানা বিজ্ঞাপন দেখে বেড়াচ্ছি। মজার এবং অদ্ভুত সব আইডিয়ার বিজ্ঞাপন দেখে ব্যাপক আনন্দ পেয়েছি বলা যায়। কয়েকটার কথা বলি এখানে। 
১/ এই বিজ্ঞাপনটা পৃথিবীর প্রাচীনতম বিজ্ঞাপনগুলোর একটি। একটি রোমান ব্রোথেলের বিজ্ঞাপন। বড় পায়ের পাতা দিয়ে দিক নির্দেশনা দেয়া আছে, কোন দিকে যেতে হবে।



২/ মাত্র এক শতাব্দী আগেও সিগারেটের বিজ্ঞাপন দেয়া হতো ডাক্তারদের রেফারেন্স দিয়ে, এই সিগারেট খেলে গলা চুলকায় না, খেয়ে দেখুন ভাইসকল! 



৩/ বউ কীভাবে পেটানো হয় এ নিয়ে বই বের হতো একসময়, সেসবের বিজ্ঞাপনও হতো। 



মজার বিজ্ঞাপন লিখে সার্চ করলে আরও অনেকগুলোর খোঁজ পাওয়া যাবে, বেশ ভাল রকমের অবসর বিনোদন, সন্দেহ নেই। 

দুই 
সাধারণত পত্রিকার ইভার্সনটা পড়া হয় এখন। মানে, স্ক্যান করে যে পাতা গুলো তুলে দেয়া হয় সেগুলো। সত্যিকারের পত্রিকার একটা আমেজ আসে তাতে, এ জন্যেই মূলত। সুবিধা হচ্ছে, শুধু খবরই নয়, খবরের সাথে সাথে মূল পত্রিকায় ছাপা হওয়া বিজ্ঞাপন দেখা যায় স্ক্যানের কল্যাণে। সেদিন প্রথম আলোর চট্টগ্রাম বিষয়ক আঞ্চলিক পাতায় একটা অদ্ভুত বিজ্ঞাপন দেখলাম! 
সেই বিজ্ঞাপনের কথা বলছি, তার আগে একটা গল্প বলে নিই। 
দেশে গেলে আত্মীয়দের সাথে আলাপের সময় অদ্ভুত সব কথা শুনতে হয়, যেহেতু বহুদিন পর পর দেশে যাই, নিজেকে ব্যাকডেটেড ধরে নিয়ে প্রায় বেশিরভাগ কথাই গিলে ফেলি কোন প্রতিবাদ ছাড়া। 
এবারে এক আত্মীয়ের বাসায় যেতে হল, উনার ছেলে সম্প্রতি গাড়ি কিনেছেন একটা। পেশায় ডাক্তার। পরিশ্রমী ছেলে, অল্প সময়ে উন্নতি করছে বেশ। অনেক ভাল লাগে দেখে। 
আমি যাবার পরে খানিক আলাপ- সালাপের পরেই সেই আত্মীয় জিজ্ঞেস করলেন, “ তা অস্ট্রেলিয়ায় যেতে এখন কত টাকা লাগে?” 
আমি প্রশ্ন বুঝতে পারলাম না, প্রথমে ভাবলাম মেলবোর্ন থেকে ঢাকার প্লেনের টিকেটের দাম জানতে চাইছেন বোধহয়। এটা ওনার কী কাজে লাগবে বুঝতে না পারলেও উত্তর দিলাম সুন্দর করে, “জ্বি, ষাট হাজার টাকার মতো লেগেছে এবার, কমবেশি হয় মাঝে মাঝে।” 
উনি হাত নেড়ে আমাকে উড়িয়ে দিয়ে বললেন, “আরে না না, সেটা না, ওখানে একবারে গিয়ে থাকার জন্যে কত লাগে এখন? শুনেছি তো দশ-পনের লাখ টাকা হলেই নাকি এখন চলে যাওয়া যায়।” 
আমি ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে বসে রইলাম, আমার অনেক বন্ধুই সম্প্রতি ওদেশে থাকবার জন্যে আবেদন করেছে এবং করছে, তাদের নানা ঝুট-ঝামেলার গল্প শুনি, নানা নিয়মের বেড়াজাল নিয়ে অভিযোগ শুনি। বেকুবগুলা কোন মতে পনের লাখ টাকা যোগাড় করতে পারে না? ধুর! 
গত বছর দশেকের মেলবোর্ন-স্মৃতি এক পলকে চোখের সামনে দিয়ে ভেসে গেলো, পড়াশোনার সেই দৌড়ের ওপর থাকার দিনগুলো থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত নানা স্মৃতি। শুনেছি মৃত্যুর আগে নাকি এরকম ফ্ল্যাশব্যাক দেখা যায়, ওই সোফায় বসেই ঘেমে নেয়ে গেলাম, মরে টরে যাচ্ছি না তো? 
নাহ, মরছি না সহজে, মরে গেলে পরের লাইনটা শুনতে পেতাম বলুন? 
সোফায় এক পা তুলে দিয়ে আয়েশি ভঙ্গিতে বসে আমার আত্মীয় ভদ্রলোক বললেন, “এত করে বললাম এখন কিনিস না, তা না, গাড়ি কিনবেই। পনের লাখ টাকা চলে গেলো। গাড়িটা না কিনলে তো অস্ট্রেলিয়ায় চলে যেতে পারতো!” 


তিন
প্রথম আলোর সেই পাতায় নিচের বিজ্ঞাপনটা দেখে আমার এই স্মৃতি মনে পড়লো। 

আমার আত্মীয় ভদ্রলোক আগেই এই বিজ্ঞাপন দেখেছিলেন কি না বলতে পারবো না, এরকম সাঙ্ঘাতিক বিজ্ঞাপন কেমন করে পত্রিকায় ছাপা হয় জানি না। দেশে বিজ্ঞাপন নিয়ে নীতিমালা বলবত আছে কি না তাও জানি না, কিন্তু এভাবে বিজ্ঞাপন দিয়ে ধোঁকাবাজি করার উদাহরণ খুব একটা চোখে পড়ে না। 
কিছুদিন আগে হলে শুধু হেসেই উড়িয়ে দিতাম এটাকে। কিন্তু আমরা এক আজব দেশের বাসিন্দা, যে দেশের লোকে চাঁদের বুকে সাঈদীকে দেখে প্রতিবেশীর ঘর ভেঙ্গে দিয়ে এসে নাক ডেকে ঘুমায় রাতে, কোন অপরাধবোধ ছাড়াই। সে দেশের লোকে এরকম বিজ্ঞাপন দেখে ছুটবেনা এরকম গ্যারান্টি কে দিবে? আর এই বিজ্ঞাপনের দায়িত্ব কে নিবে? পত্রিকা, নাকি সরকার? 

জানা নেই। 

সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৫

আমার বন্ধু রাশেদ...

যারা এখনো দেখেন নি, তারা এখান থেকে আমার বন্ধু রাশেদ সিনেমাটি দেখে ফেলতে পারেন। চমৎকার প্রিন্ট। আপনি দেখুন, সাথে আপনার সন্তানদেরও দেখান। দেখতে না চাইলে শর্ত জুড়ে দিন, বলুন, এটা না দেখলে হ্যারি পটার দেখাতে নিয়ে যাবো না কিন্তু। তবু কাজ না হলে, চকোলেটের লোভ দেখান। তারপরেও, যেভাবেই হোক, সিনেমাটি তাদের দেখতে দিন। এর প্রয়োজন আছে, বিশ্বাস করুন।