রবিবার, জুন ১১, ২০১৭

৯ জুন ২০১৭।

একটা মনে রাখার মত দিন গেলো গতকাল। ৯ জুন ২০১৭।
সন্ধ্যায় গেলাম MCG তে, আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিল এর খেলা দেখতে। লিওনেল মেসি কে সরাসরি মাঠে বসে দেখার সুযোগ হারাতে ইচ্ছে হল না। এবং গিয়ে আসলেই খুব ভাল লাগলো, মেসি-র খেলা দেখা হল, আর্জেন্টিনাও জিতল ম্যাচ ১-০ তে।



তারপরে দেখতে বসলাম বাংলাদেশ আর নিউজিল্যান্ডের খেলা।
আমার বাজে স্বভাব, খেলার শেষ বল পর্যন্তও বাংলাদেশের উপরে ভরসা হারাই না। ৩৩ রানে ৪ উইকেট হারিয়েও আমি তাই মেরুদণ্ড সোজা করে বসে খেলা দেখে গেলাম। এবং ওয়াও, এর চেয়ে ভালো প্রতিদান পাওয়া কি সম্ভব ছিল কোন? দেখলাম বাংলাদেশের অন্যতম সেরা জয়!
ধন্যবাদ মাহমুদুল্লাহ, অনেক অনেক ধন্যবাদ সাকিব, এই খান থেকে কেবলই সামনে এগিয়ে যাওয়ার দিন শুরু হলো হয়তো আমাদের।

বুধবার, জুন ০৭, ২০১৭

ওয়ার্কশপ

 ১
 তাঁরা তিন ভাই। বাংলাদেশের সবচেয়ে সুপরিচিত পরিবারই বলা চলে তাঁদেরকে।  বড় দুজন দেশের জনপ্রিয়তম লেখক, ছোট জন আমাদের দেশের কার্টুনিস্টদের কাছে গুরুপ্রতিম। তিনজনের লেখার  কল্যাণেই তাঁদের শৈশব, অদ্ভুত সুন্দর পরিবার বা বেড়ে ওঠার সময়টারও অনেক কিছুই পাঠকদের জানা। আমরা জানতে পারি, শৈশবে তাঁদের বাবা কবিতা শেখার বিনিময়ে তাঁদেরকে সম্মানী দিতেন, বড় কবিতায় আট আনা, ছোট কবিতায় সিকি পয়সা। বাজারের ফর্দ লেখার মত করে নিয়মিত তাঁরা গল্প-কবিতা লিখতেন ছোটবেলায়, কখনো নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা করে, কখনও সেই, সম্মানীর বিনিময়ে।  যখন এই সব পড়েছিলাম, মাঝে মাঝে আপন মনে ভেবেছি, লেখক হবার বীজ এমন করেই শৈশবে তাঁদের মধ্যে বুনে দিয়েছিলেন তাঁদের বাবা। কী চমৎকার একটা ব্যাপার। 
আইবুক থেকে সপ্তাহে একদিন নিউজলেটার পাঠায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বই এর বিজ্ঞাপন, নতুন কী বই এলো, এখন কোনটা সবচেয়ে বেশি চলছে, এরকম সব কারবার। এমনই একটা নিউজলেটারে পেলাম Liane Moriarty-র নাম। নিউইয়র্ক টাইমস বেস্ট সেলার লেখিকা। বিশেষ আগ্রহ হল লেখিকা অস্ট্রেলিয়ার শুনে। আইবুক থেকেই কয়েকটা বই এর স্যাম্পল নামিয়ে কয়েকটা প্রথম চ্যাপ্টারও পড়া হয়ে গেলো। তরতর করে এগিয়ে চলা গদ্য, চমৎকার রসবোধ লেখায়, পড়তে খুবই সুস্বাদু। কী ভেবে লেখিকার ওয়েবসাইটে ঢুকলাম। 
যে কোন বইয়ে আমার সবচেয়ে পছন্দের অংশ হচ্ছে লেখকের লেখা ভূমিকা এবং লেখক পরিচিতির অংশটুকু। আর এখনতো ওয়েবসাইটে লেখক-পরিচিতিটা বেশ বিশদে দেয়া থাকে। 
লিয়ান মরিয়ারটি ‘এবাউট মি’ পাতাটা পড়ে বেশ চমকে গেলাম। শুধু একটা প্যারা এখানে তুলে দিচ্ছি। 
‘লেখিকা প্রথম গল্প কবে লিখেছিলেন সেটা এখন আর মনে নেই, তবে প্রথম প্রকাশনা চুক্তির কথা খুব ভাল করেই তাঁর মনে আছে। বাবার জন্যে তিনি একটি উপন্যাস লিখে দিবেন, এই মর্মে চুক্তি করে বাবার কাছ থেকে অগ্রিম পারিশ্রমিক পেয়েছিলেন তিনি এক ডলার। বিনিময়ে তিন খণ্ডের এক মহাকাব্যিক উপন্যাস লিখেছিলেন তিনি তখন, নাম ছিল- ‘ দি মিস্ট্রি অব ডেড ম্যান’স আইল্যান্ড।’’ 

৩ 
লিয়ান মরিয়ারটিরা ছয় ভাই বোন। 
তাঁদের মধ্যে তিনজনই এখন লেখিকা। লিয়ান এর ছোট দুই বোন জ্যাকলিন এবং নিকোলারও বেশ কয়েকটি করে বই প্রকাশিত হয়ে গেছে ইতিমধ্যে। সেসব বই জনপ্রিয়ও হয়েছে বেশ। 

জ্যাকলিন এর ওয়েবসাইটে পরিচিতির পাতাটা সাম্প্রতিক সময়ে আমার পড়া সবচেয়ে প্রাঞ্জল ও মজার লেখা, সন্দেহ নেই।  

শুক্রবার, জুন ০২, ২০১৭

অনুবাদ প্রচেষ্টাঃ রবিন হলের দি কার্টুনিস্ট'স ওয়ার্কবুক এর ভূমিকা


ভুমিকাঃ দি কার্টুনিস্ট’স ওয়ার্কবুক 
    কার্টুন আঁকার ব্যাপারটা আমার কাছে চিরকালই খুব আকর্ষণীয় মনে হয়েছে, কারণ আমার ধারণা ছিল অন্য চাকুরেদের মত কার্টুনিস্টদের নিশ্চয়ই রোজ রোজ  সকালে ঘুম ভেঙ্গে কাজে যেতে হয় না। অবশ্য, এটাই একমাত্র কারণ নয়। আমি রীতিমতন মুগ্ধ হই এই ভেবে যে, কেবল একটা কার্টুন দিয়েই কেমন করে আমাদের জীবনের প্রায় সব রকম দৃষ্টিভঙ্গি ফুটিয়ে তোলা যায় - খুব সিরিয়াস কোন ব্যাপার থেকে শুরু করে  খুব মজার কিছু- অথবা দুনিয়া কাঁপানো কোন ঘটনাই হোক বা খুব সাধারণ কোন ব্যাপার- সব কিছু কেবল একটা ছবিতেই কেমন এঁকে ফেলা যায়।
        যাই হোক, আমি সেই ভাগ্যবানদের দলে পড়ি না যারা নানা রকম সৃজনীশক্তি নিয়ে জন্মেছে। সত্যি বলতে কি, আমার আঁকা ছবিও একেবারেই ভাল ছিল না; এমনকি খুব প্রাথমিক পর্যায়ের আঁকাআঁকিও দেখতে কাকের ঠ্যাং বকের ঠ্যাং মনে হতো। সুতরাং কার্টুনিং যদি করতে চাই, আমাকে যে খুব ভালমতন উঠে পড়ে লাগতে হবে সেটা আমি বেশ বুঝেছিলাম। তাই হাতের কাছে আমি যা কিছু কার্টুন পেতাম সব ভাল করে দেখা শুরু করলাম, শত শত কার্টুন। আর সেগুলো দেখে দেখে আঁকা অনুশীলন করতাম কেবল, করেই যেতাম করেই যেতাম।
       অল্প অল্প করে যখন আমার আঁকা ভাল হতে শুরু করলো, আমি বুঝতে পারলাম যদি কার্টুন আঁকবার সময় আমি কিছু নির্দিষ্ট পদ্ধতি আর ধরাবাঁধা উপায় অনুসরণ করি, তাহলে সেগুলো সত্যিই ভাল হতে বাধ্য। সময়ের সাথে সাথে এই পদ্ধতি বা উপায়গুলোকেই আমি একটা কার্যপ্রণালীতে পরিণত করে ফেললাম, যেটা শেষমেশ আমাকে কার্টুনিং জগতের দরজা খুলে দিলো।
       এই বইটি মূলত সেই পদ্ধতিগুলোকে ভাগ করে নেবার একটা চেষ্টা, বিশেষত তাদের সাথে যাদের আমার মতই উৎসাহের কোন কমতি নেই, কমতি আছে সৃজনীশক্তিতে। যারা মাত্রই শুরু করতে যাচ্ছেন এবং যারা ইতিমধ্যেই পেশাদার কার্টুনিস্ট, তাদের সবার জন্যেই আমি বেশ কিছু প্রাসঙ্গিক ছবি যোগ করে দিয়েছি, সেগুলো আশা করি সবার কাজে আসবে।
     সবশেষে সকল নব্য কার্টুনিস্টদের জন্যে আমার শুভ কামনা রইলো। 
সেই সাথে বলে রাখি ঐ কথাটি কিন্তু মিথ্যে নয়, কার্টুনিস্টদের কিন্তু আসলেই রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠতে হয় না।
- রবিন হল